রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, , ১৮ জ্বিলক্বদ ১৪৪৫

এবার ডিম-মাছের বাজারেও অস্বস্তি

এবার ডিম-মাছের বাজারেও অস্বস্তি
ছবি: সংগৃহীত

ডেস্ক রিপোর্টার।।চালের পর এবার ডিম-মাছের বাজারও চড়া। এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডজনে ৫ টাকা বেড়েছে ডিমের দাম। গরু ও মুরগির মাংসের দাম বাড়ার প্রভাব পড়েছে মাছের বাজারেও। শনিবার (২০ জানুয়ারি) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র। নিত্যপণ্যের এমন লাগামহীন দামে ক্ষুব্ধ ক্রেতাদের অভিযোগ, ব্যবসায়ীরা একের পর এক পণ্যের দর বাড়াচ্ছে। নামকাওয়াস্তে বাজারে অভিযান হলেও কার্যত এর সুফল পাচ্ছে না ভোক্তারা। তাই পণ্যের সরবরাহ ও বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে সরকারকে নতুন করে ভাবতে হবে। ভরা মৌসুমেও বাজারে এখন সব ধরনের সবজির দাম চড়া। মগবাজার, সেগুনবাগিচা ও মালিবাগ বাজারে দেখা গেছে, ছোট আকারের একটা লাউ কিনতে গেলে গুনতে হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা। শিমের কেজিতে খরচ করা লাগে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। ফুল ও বাঁধাকপির পিস আকারভেদে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। আলুর কেজি এখনও ৫০ টাকার বেশি। সবজির চড়া দামের কারণে ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছে ডিমের দোকানে। তাতে তেতে উঠেছে ডিমের বাজার। গত বছর ডিমের বাজার বেশ বেসামাল হয়েছিল। বিশেষ করে গত আগস্ট-সেপ্টেম্বরে দর বেড়ে এক পর্যায়ে ডিমের ডজন ছুঁয়েছিল ১৭০ টাকা। এরপর সরকার আমদানির অনুমতি দিলে বাজার অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আসে। ১৭০ টাকার ডিমের ডজন কমে নেমে আসে ১২০ টাকায়। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ১২০ থেকে ১৩০ টাকার মধ্যে ওঠানামা করেছে। তবে চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের পর বাজারে প্রায় সব নিত্যপণ্যের দর বেড়ে যায়। ডিমের বাজারও কিছুটা নড়েচড়ে ওঠে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি ডজন ফার্মের ডিমের দর বেড়েছে ৫ টাকা। ফলে প্রতি ডজন ডিম বিক্রি হচ্ছে এখন ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা। তবে পাড়া-মহল্লার দোকান থেকে কিনতে গেলে ডজনে আরও ৫ টাকা বেশি খরচ করতে হয়। অর্থাৎ ডজনে গুনতে হচ্ছে ১৪০ টাকা। সেই হিসাবে ডজনে বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা। গত বছরের শেষ দুই মাস মাংস বিক্রেতারা কিছুটা স্বস্তি দিয়েছিল ক্রেতাদের। স্ব-উদ্যোগেই তারা দর কমিয়ে ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকা বিক্রি শুরু করে গরুর মাংস। তবে নির্বাচনের পর তারা আবার কেজিতে ৫০ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে দেন। তাতে প্রতি কেজির দাম দাঁড়ায় ৭০০ টাকা। দুই দিন ধরে দেশি গরুর মাংস তকমা দিয়ে কেউ কেউ ৭৫০ টাকা দরেও বিক্রি করছেন। ব্রয়লার মুরগির দরও বাড়তি। গত ১৫ থেকে ২০ দিনে ধীরে ধীরে বেড়ে ব্রয়লারের কেজি ২০০ টাকা ছাড়িয়েছে। কেজিতে ২০ টাকার মতো বেড়ে সোনালি জাতের মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা দরে। গরুর মাংস ও ব্রয়লারের দাম বাড়ার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে মাছের বাজারে। কিছু দিন ধরে বাড়তি সব ধরনের মাছের দাম। স্বল্প আয়ের মানুষ সবচেয়ে বেশি কিনেন পাঙাশ, তেলাপিয়া ও চাষের কই। বাজারে এই তিন পদের মাছের দর বেড়েছে। প্রতি কেজি পাঙাশ ২০০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া তেলাপিয়ার কেজি ২৩০ থেকে ২৫০ টাকা এবং চাষের কই মাছের কেজি ২৫০ থেকে ২৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহ আগে এ তিন জাতের মাছ অন্তত ৩০ টাকা কম দরে কেনা গেছে। বাজারে প্রতি কেজি রুই আকারভেদে ৩২০ থেকে ৪৫০ টাকা এবং কাতলার কেজি ৩৫০-৪০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া পাবদার কেজি ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, শিং মাছ আকারভেদে কেজি ৪৮০ থেকে ৬০০, চিংড়ির কেজি আকারভেদে ৫৫০ থেকে ৮০০, ছোট ট্যাংরা মাছের কেজি ৫০০ থেকে ৬০০ এবং বোয়াল মাছের কেজি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মাছ-মাংস, সবজি ছাড়াও বাজারে সব ধরনের ডালের দাম বেড়েছে। বিশেষ করে ছোলা, অ্যাংকর ও মুগ ডালের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি। ছোলার কেজি মানভেদে ১০০ থেকে ১১০, অ্যাংকর ডাল ৭৫ থেকে ৮০ এবং মুগ ডালের কেজি ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।